NIOS চেয়ারম্যান কে খোলা চিঠি/An open letter to NIOS Chairman

Spread the love

NIOS চেয়ারম্যান কে খোলা চিঠি/An open letter to NIOS Chairman

NIOS চেয়ারম্যান কে খোলা চিঠি/An open letter to NIOS Chairman

সূচীপত্র

প্রতি,

চন্দ্রভূষণ শর্মা

NIOS চেয়ারম্যান

শুনুন মহাশয় ,

                              আপনি যখন ইট মেরেছেন তখন পাটকেলটি আপনাকে খেতেই হবে । আপনি বলবেন আর আমরা চুপ করে থাকব , তা হয় না । আপনি ক্যামেরার সামনে অনর্গল ভুলভাল কথা বলবেন । আর আমরা আপনার ভুলগুলোকে বারবার শোধরাতে থাকব , তা হয় না ! শেষদিন তো আপনি সীমা ছাড়িয়েই গেলেন । মানুষকে ইউটিউব দেখতেই বারন করলেন ! শুনে খানিকটা হাসিও লেগেছিল , তারপর দেখলাম থাক মানুষই বিচার করুক । আর আজ সেই সুত্র ধরেই আপনাকে জবাব দেওয়া ! ভাবছেন তো আমি কে ? আমি হলাম সেই কতিপয় ইউটিউবারদের মধ্যে একজন ( যারা ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করে ) যারা নিরলস পরিশ্রম করে চলেছেন NIOS এর ভুলগুলিকে ধরিয়ে দিতে এবং সেই সমস্যা থেকে পথ দেখাতে ! এটা জেনে রাখুন আজ যদি আমাদের মত কিছু ইউটিউবার না থাকত তাহলে আপনাদের অফিসের একটি কাঁচও আস্ত থাকত না । আপনারা যেভাবে ভুলের পর ভুল করে চলেছেন  তা আটকে রাখার পিছনে আমাদের যথেষ্ট অবদান রয়েছে !

                              আপনারা অনলাইনে পড়াচ্ছেন খুব ভালো কথা , কিন্ত আপনি কি জানেন এই ক্যান্ডিডেটের একটা বড় অংশ যাদের কাছে অনলাইন বিষয়টাই ধোঁয়াশা ! পড়া তো দূরের কথা , ইমেল আইডি কি তাই অনেকে জানেন না ( তাদের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে , বাস্তব কথাগুলি বলছি ) !

                          ও  হ্যা ! আপনারা তো স্টাডি মেটিরিয়েল (বাংলা ) প্রভাইড করেছেন ! কখনও নিজে পড়ে দেখেছেন সেগুলি ? পড়তে পড়তে কখনও কখনও কান্না চলে আসে , তবু উদ্ধার করতে পারা যায় না তার মানে ! বাজারে যে বইগুলিও প্রকাশিত হয়েছে সেগুলিও একদমই সিলেবাস ধরে করা হয়নি তারফলে NIOS ক্যান্ডিডেটদের অবস্থা হয়েছে “ছেঁড়ে দে দাদু , কেঁদে বাঁচি” ! আর এখানেও উদ্ধার করেছে আমাদের মত কিছু ইউটিউবার যারা রাতদিন জেগে সাজেশান তৈরি করেছেন , প্রশ্নোত্তর তৈরি করে NIOS DLED ক্যান্ডিডেটদের প্রভাইড করেছেন ! সেই সকল ইউটিউবারদের আমার তরফ থেকে শ্রদ্ধা জানাই !

                        পরীক্ষার কথা না হয় ছেড়েই দিলাম , যেভাবে পরীক্ষা সেন্টারে পরীক্ষা হয়েছে তা আর কারও কাছে অজানা নয় , তারপরে আবার শুনলাম আপনারা নাকি ১৮৫০ জনকে রেজাল্ট উইথহেল্ড করেছেন ! যদি নিয়মমত এটি করতেন তাহলে “ঠগ বাছতে গা উজাড়” হয়ে যেত ! বাকিটা বুঝে নেন ! আর আজ আপনি ইউটিউবার দের দোষ দিচ্ছেন ! সত্য বগা কেউট ! কি বিচিত্র দেশ !

                       যদি আপনাদের ভুলের ফিরিস্তি দিতে লাগি তাহলে আর একটা মহাভারত হয়ে যাবে তাই সে চেষ্টা ক্ষান্ত দিলাম ।

                   হ্যা মানছি কিছু ইউটিউবার মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন , তারমানে এই নয় আপনি গোটা ইউটিউব ফ্যামিলিকে দোষ দেবেন ! আর সব থেকে মজার বিষয় কি জানেন আপনি ইউটিউবে ভিডিও দিয়েই বলেছিলেন ইউটিউব দেখবেন না !

                      এবার আসি আপনার কিছু পথ প্রদর্শক মানুষদের কথাই যারা আপনার কথাই নাচানাচি শুরু করে বলছে “ ইউটিউব দেখা ঠিক নয় , ইউটিউব দেখলে ইউটিউবারদের ভিউস,লাইক, পয়সা হচ্ছে !” তাদের বলছি সত্যি আপনাদের জবাব নেই SBA , WBA  নিয়ে যখন সমস্যায় পড়েছিলেন তখন কে উদ্ধার করেছিল ? এই আমার মত কিছু ইউটিউবাররাই উদ্ধার করেছিল ! আপনারা  ঘণ্টার পর ঘণ্টা হোয়াটসএপ , ফেসবুক করে মার্ক জুকারবার্গকে(ফেসবুক যিনি তৈরি করেছেন )কোটি কোটি টাকা ইনকাম করতে সাহায্য করবেন , আর যখন কেউ রাতদিন জেগে আপনাদের জন্য সাজেশান , প্রশ্ন উত্তর তৈরি তার বাবদ দশ টাকা চাইবেন তখন আপনাদের গা কিরকির করে উঠবে ! সেটা ফ্রিতে পাওয়া যেন আপনাদের জন্মগত অধিকার ! প্রতি তিনমাসে মাসে জিওকে ৪০০ টাকা দিয়ে বড়লোক করছেন , আর যদি কেউ কঠোর পরিশ্রম করে তার পরিশ্রম বাবদ সামান্য পারিশ্রমিক দাবি করে , তখন সেটা ফ্রিতে আপনাদের জন্মগত অধিকার । বাজার থেকে ৫০০ টাকা দিয়ে বই কিনতে পারবেন , কিন্ত ফেসবুকে যদি কেউ পোস্ট করে একটি বই এর বিজ্ঞাপন দেই তখন আপনাদের জন্মগত অধিকার জেগে ওঠে ! তখন তা আপনাদের ফ্রিতে দিতে হবে ! নিজের ইগোটুকু সরিয়ে শান্ত মনে ভেবে দেখবেন কথাগুলো সত্যি না মিথ্যা !

                  হে চেয়ারম্যান সাহেব আপনার চেয়ারটা এবার ছাড়ার সময় হয়েছে ! উঠে দাঁড়ান , চোখ মেলুন , তাকিয়ে দেখুন কি অবস্থায় রয়েছে আপনার NIOS DLED ক্যান্ডিডেটেরা । যাদের দিনের শান্তি আর রাতের ঘুম  আপনি কেড়ে নিয়েছেন ! দোহায় আপনার কিছু তো করুন !!

Leave a Reply

Your email address will not be published.